নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

শ্রম আইনের বিধান না মানার অভিযোগ এনে গত ৫ জানুয়ারি ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতের বিচারক রহিবুল ইসলামের আদালতে এ মামলা দায়ের করা হয়। কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের শ্রম পরিদর্শক (সাধারণ) তরিকুল ইসলাম বাদি হয়ে মামলাটি করেন।

মামলায় ড. ইউনূস ছাড়াও আসামি করা হয়েছে গ্রামীণ কমিউনিকেশনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নাজনীন সুলতানা, পরিচালক আ. হাই খান ও উপ-মহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) গৌরি শংকরকে।

গত ১৩ জানুয়ারি আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে সমন জা‌রি ক‌রেন। এরপর ২০ ফেব্রুয়া‌রি ইউনূ‌সের প‌ক্ষে দোষ স্বীকার ক‌রে অভিযোগ থে‌কে খালাস চান তার আইনজীবীরা।

পরে ড. ইউনূসের অন‌্যতম আইনজীবী সিরাজুল ইসলাম সাংবা‌দিক‌দের ব‌লেন, আমরা আদালত‌কে ব‌লে‌ছি শ্রম আইনে অপরাধ স্বীকার কর‌লে খালাসের বিধান আছে। তাই আমরা দোষ স্বীকার ক‌রে নি‌চ্ছি এবং ভ‌বিষ‌্যতে তা প্রতিপাল‌নের অঙ্গীকার কর‌ছি। তাই আসামিদের মামলা থেকে খালাস দেয়া হোক। পরে আসামি চারজন‌কে সা‌ড়ে ৭ হাজার টাকা ক‌রে জ‌রিমানা বাবদ মামলা নিষ্প‌ত্তি ক‌রে তাদের খালাস দি‌য়ে‌ছেন আদালত।

পাঠকের মন্তব্য