হোয়াইটওয়াশ ওয়েস্ট ইন্ডিজ

বাংলাদেশের সিরিজ জয়

সিরিজের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত যা হলো, সবই ছক অনুযায়ী। চিত্রনাট্যের বাইরে কিছুই করার ছিল না কুশীলবদের। চট্টগ্রামে সোমবার তৃতীয় ওডিআইতেও সেই একই মঞ্চায়ন। বাংলাদেশ ২৯৭/৬ করার পর নির্ধারিত হয়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের ভাগ্য-হোয়াইটওয়াশ।

এরপর ওয়েস্ট ইন্ডিজ ঢাকার মতো ধুঁকতে ধুঁকতে শেষতক ১৭৭ রানে অলআউট। ক্যারিবীয়দের ১২০ রানে হেরে যাওয়াটা নিয়তি নির্ধারিত। আনুষ্ঠানিকতা রক্ষার ম্যাচে বাংলাদেশ জিতবে, সিরিজ হবে ৩-০ সবই হয়েছে চিত্রনাট্য অনুযায়ী।

করোনাকালে নিজেদের প্রথম আন্তর্জাতিক সিরিজে সব লক্ষ্যই পূরণ হয়েছে বাংলাদেশের। দ্বিতীয়বারের মতো ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ। তিন জয়ে ৩০ পয়েন্ট নিয়ে ওয়ানডে সুপার লিগে অস্ট্রেলিয়ার পর দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসাও বড় প্রাপ্তি।

নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেই সিরিজসেরা সাকিব আল হাসান। তিন ম্যাচে ছয় উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ১১৩ রান করেছেন এই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

তবে কাল শেষ ম্যাচে বোলিংয়ের সময় কুঁচকিতে চোট পেয়ে সাকিবের খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে মাঠ ছাড়া চিন্তায় ফেলে দিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্টকে। সাকিবের চোট বাদে বাকি সবই হয়েছে মনের মতো।

বাংলাদেশের জন্য তিন উল্লাস। শুধু তামিম ইকবালের চাওয়া মতো বাংলাদেশের কেউ সেঞ্চুরি করলে সোনায় সোহাগা হতো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিরিজ জয়ে জাতীয় ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এক বার্তায় তিনি খেলোয়াড়, কোচ ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের কর্মকর্তাদের অভিনন্দন জানান। ভবিষ্যতেও জয়ের ধারা অব্যাহত থাকবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

এশিয়ামেইল২৪/এমএইচ

পাঠকের মন্তব্য