পাকিস্তানে অস্ট্রেলিয়ার সফরের প্রত্যাশায় ইমরান

নিরপেক্ষ ভেন্যুতে খেললেও ১৯৯৮ সালের পর পাকিস্তান সফর করেনি অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। তবে আগামী ২০২২ সালে অজিদের পাকিস্তান সফর করার পরামর্শ দিয়েছেন ইমরান খান। সিরিজ নিয়ে ইতোমধ্যে স্কট মরিসনের সাথে টেলিফোনে আলাপ করেছেন পাকিস্তানের এই প্রধানমন্ত্রী। 

ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) ভবিষ্যৎ সূচি অনুযায়ী (এফটিপি) ২০২২ সালের ফেব্রয়ারি-মার্চে তিনটি করে ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি ও ২ ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে পাকিস্তান সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে স্টিভেন স্মিথ-ডেভিড ওয়ার্নারদের।

ইমরান বিশ্বাস করেন কোভিড-১৯ এর উন্নত পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে দুই দলের দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আবারও চালু করা যেতে পারে। সফরের জন্য অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনকে আমন্ত্রণও জানিয়েছেন পাকিস্তানের এই বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক।

তিনি বলেন, ‘সার্বিক পরিস্থিতির উন্নতি হলে এবং কোভিড-১৯ এর অবস্থা আরও ভালো হলে আবারও দুই দেশের মধ্যে ক্রিকেট শুরু করা যেতে পারে।'

পাকিস্তন ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খানও আশাবাদী অদূর ভবিষ্যতে ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ার মতো পরাশক্তিরা পাকিস্তান সফর করবে।

পাকপ্যাশনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পিসিবির এই কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা ২০২২ সালে ইংল্যান্ডকে স্বাগত জানানোর প্রত্যাশা করছি। সেই সঙ্গে ২০২১ সালের জানুয়ারিতে দক্ষিণ আফ্রিকা, তারপর নিউজিল্যান্ড এবং ২০২২ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঘরের মাঠে খেলতে আমরা আশাবাদী। সামনে আমাদের ব্যস্ত দুটি বছর আছে। এমসিসি পাকিস্তানে সফর করে সফরকারী দেশগুলোর পথ সুগম করে দিয়েছে।'
 
২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কা দলের উপর সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজনে নিষেধাজ্ঞায় পড়ে পাকিস্তান। প্রায় ১০ বছর পর আবারও নিজেদের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরিয়েছে তারা। ইতোমধ্যে শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের মতো দেশগুলো পাকিস্তান সফর করেছে। কদিন পরেই জিম্বাবুয়ে দলের পাকিস্তান সফরের কথা রয়েছে।

পাঠকের মন্তব্য